KYC ফর্ম এর ধারণা ও গুরুত্ব | Concept and Importance of Bank KYC Form.




KYC ফর্ম এর ধারণা ও গুরুত্ব
KYC ফর্ম এর ধারণা ও গুরুত্ব

 


KYC ফর্ম - এর ধারণা ( Concept of KYC Form ) আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যাংক যেসব গ্রাহকের সাথে লেনদেন বা ব্যবসায়িক কাজ পরিচালনা করে , তাদের সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য জানা ব্যাংকের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । ব্যাংক যে ফর্মের মাধ্যমে গ্রাহক সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করে তাকে Know Your Customer বা KYC ফর্ম বলে । এ ফর্মের মাধ্যমে ব্যাংক গ্রাহকের নাম , ঠিকানা , পেশা , কাজের বিবরণ , কাজের বৈধতা এবং অন্যান্য যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করে । ব্যাংকে হিসাব খোলার মধ্য দিয়ে ব্যাংকের সাথে তার গ্রাহকের ব্যবসায়িক সম্পর্কের সৃষ্টি হয় । 


ব্যাংকের কোনো গ্রাহক যদি অবৈধ কাজ বা ব্যবসায়ের সাথে জড়িত থাকে , তাহলে ব্যাংক আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে । এজন্য প্রত্যেক গ্রাহককে বাধ্যতামূলকভাবে ব্যাংকের কাছে তার পরিচয় এবং সঠিক তথ্য প্রকাশ করতে হয় । আগে ব্যাংক কর্মকর্তা এ বিষয়ে পরিচয়দানকারীর ( Introducer ) ওপর নির্ভর করতেন । কিন্তু বর্তমান ব্যবসায় জগতে শুধু পরিচয়দানকারীর ওপর নির্ভর করে গ্রাহক সম্পর্কে সব তথ্য সংগ্রহ করা যায় না । ২০০২ সালের পর বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ অনুযায়ী সব ব্যাংক KYC ফর্ম চালু করে । 


এরপর থেকে মানি লন্ডারিং অর্থাৎ অর্থ জালিয়াতি প্রতিরোধে এ ফর্ম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে । 


KYC ফর্মের মাধ্যমে নিচের কাজগুলো করা হয়—


  • গ্রাহকের পরিচয় শনাক্ত এবং বিশ্লেষণ করা হয় । 

  • ব্যাংকের পরিচিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় গ্রাহকের পরিচয় সত্যায়ন করা হয় । 

  • গ্রাহক মুদ্রা পাচার বা অন্য কোনো অপরাধমূলক কাজের সাথে যুক্ত আছে কি না , তা পরীক্ষা করা হয় । 

  • গ্রাহকের ব্যবসায়িক ঝুঁকি সনাক্ত করা হয় । 

  • গ্রাহকের লেনদেনের ধরন সনাক্ত করা হয় ।



KYC ফর্ম - এর গুরুত্ব ( Importance of KYC Form ) গ্রাহক সম্পর্কে সঠিক তথ্য জেনে লেনদেন বা ব্যবসায় পরিচালনা করার ক্ষেত্রে KYC ফর্ম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।


নিচে KYC ফর্মের গুরুত্ব তুলে ধরা হলো - :


  • unticked

    KYC ফর্মের মাধ্যমে গ্রাহকের সঠিক পরিচয় সনাক্ত করা যায় এবং নিশ্চিত হওয়া যায় যে , গ্রাহক কোনো রকম অবৈধ ও সন্ত্রাসী কাজের সাথে জড়িত আছে কি না । 

  • unticked

    গ্রাহক কী উদ্দেশ্যে ব্যাংকে হিসাব খুলতে আগ্রহী এবং তার লেনদেনের প্রকৃতি কেমন হবে প্রভৃতি তথ্য KYC ফর্মের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয় । গ্রাহক একবারে কী পরিমাণ অর্থ তুলবে এবং জমা দিবে , এসব তথ্য KYC ফর্মের মাধ্যমে সংগ্রহ করায় লেনদেনে সচ্ছতা বজায় থাকে । 

  • unticked

    ব্যাংক KYC ফর্মের মাধ্যমে গ্রাহকের হিসাবকে শ্রেণিবিভাগ করে । যেমন : ঝুঁকিপূর্ণ হিসাব , কম ঝুঁকিপূর্ণ হিসাব । কোনো গ্রাহক অস্বাভাবিক লেনদেন করে কি না , তা KYC ফর্মে দেওয়া তথ্যের সাথে মিলিয়ে দেখতে পারে । 


  • unticked

    অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষার মাধ্যমে গ্রাহক KYC ফর্মে উল্লিখিত শর্ত অনুযায়ী লেনদেন করছে কি না , তা জানা যায় , যার মাধ্যমে লেনদেনের ঝুঁকি কমানো যায় । 



তাই বলা যায় , গ্রাহকের সঠিক পরিচয় সনাক্তকরণে KYC ফর্মের গুরুত্ব অনস্বীকার্য । 





🔍Search Tag

KYC ফর্ম কি

KYC কাকে বলে

E KYC মানে কি

KYC এর পূর্ণরূপ কি

নমুনা স্বাক্ষর কার্ড কি

Know Your Customer




Thank You For Visit Our Website


Previous Post Next Post