রাত পোহাইলে বন্ধ হচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্র পায়রা। 




 সময় মতো কয়লার বিল ডলারে পরিশোধ না করতে পারায় আগামীকাল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্র পায়রা।

 আগামী ২৫ জুনের আগে সেটি চালু হওয়ার সম্ভাবনা ও কম। কতৃপক্ষ বলছেন বকেয়ার ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এর বকেয়া পরিশোধ করলেও সময় লাগবে ৩ সপ্তাহের বেশি।যার ফলে অন্তত ২১ দিন বন্ধ থাকবে দেশের একমাত্র সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্র।

যার কারন ৬ মাসের বেশি সময় ধরে কয়লার টাকা পরিশোধ করতে পারছিলো না পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্র কতৃপক্ষ। ফলাফল মধ্যে এপ্রিল এর পর থেকে আর কোনো কয়লা পাঠায়নি চিনা অংশীদার। কয়লার মজুদ কম থাকায় একটি ইউনিট ২৫মে থেকেই বন্ধ আর দ্বিতীয়টিকে ও একই পথ অবলম্বন করতে হচ্ছে।  

পায়রায় প্রতিদিন কয়লা লাগে ১২হাজার টন। বেইজিং থেকে LC খুলে কয়লা এনে দিত চিনা কম্পানি। শর্ত ছিল ছয় মাসের মধ্যে কয়লার সম্পূর্ণ টাকা পরিশোধ করতে হবে কিন্তু ছয় মাসের মধ্যে পরিশোধ করতে না পারায় তারা কয়লা পাঠানো বন্ধ করে দেয়। 

মোট বকেয়া ৩৯০ মিলিয়ন ডলারের বিপরীতে ৩১ মে পর্যন্ত সোদ হয়েছে ৮৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। 

এর ফলে আবার ইন্দোনেশিয়া থেকে LC খুলে আবার কয়লা পাঠাবে চিনা প্রকল্প অংশীদার CMC. এতে কমপক্ষে ২৫ দিন সময় লাগবে বলে জানান প্রকল্প কতৃপক্ষ। 

বর্তমান সময়ে আন্তর্জাতিক বাজারে কয়লার দাম সর্বনিম্ন। প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে খরচ হতো ইউনিট প্রতি ৫ টাকা। সে সুয়োগ কাজে লাগাতে পারলো না সরকার। 

নতুন করে কয়লা আসলে ৫০ দিনের মজুত রাখার পরিকল্পনা করছে কতৃপক্ষ। পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উৎপাদনের ক্ষমতা ১০০ ভাগ। সবচেয়ে কমদামে বিদ্যুৎ মিলতো এখান থেকেই।

তাই সবাই ধারনা করছে আগামীকাল থেকে ২০ থেকে ২৫ দিন পর্যন্ত প্রচুর লোডশেডিং হবে পুরো বাংলাদেশে। এটা সমাধান করতে কমপক্ষে ২৫ দিন সময় লাগবে। 

সাথেই থাকুন ইউনিক আপডেট এর 

Previous Post Next Post